করোনা মহামারী শুরু হলো। ম্যাক্সিমাম পাবলিকের মাথায় ঘুরছে কিভাবে মাস্ক আর স্যানিটাইজার ব্যবহার করে ব্যবসা করা যায়। তারপরে তাদেরকে কারা যেন বুদ্ধি দিলো ফেসবুকে প্রমোশন করে মাস্ক আর স্যানিটাইজার বিক্রি করা সম্ভব!

মানুষ লাল-নীল-বেগুনি আর রংধনু রঙের মাস্কের অর্ডার করছে অনলাইনে! আমি নিজেও ৪০০ ডলারের বেশি বুস্ট করিয়ে দিয়েছি বিভিন্ন পাবলিকের। তারপরে হুট করে একদিন করোনা উপদ্রব স্তিমিত হয়ে গেল। তারপর যারা ফেসবুকে ব্যবসা করছিলেন তাদের ব্যবসা আর চলছে না। ধীরে ধীরে অফলাইনেও সেই ব্যবসা বন্ধ হতে শুরু করছে।

এতে ক্ষতির কি আছে?
এই ব্যবসা কেউ লং টার্মের জন্য করে নি বা করছে না বা করবে না; তাই না? কিন্তু একটাবার চিন্তা করুন। যদি কেউ লং টার্মের জন্য এই পণ্যের ব্যবসা করার চিন্তা করে তাহলে? সেই পণ্য একটা নির্দিষ্ট সময় পরে আর চলবে না।

যে বা যারা এই মাস্ক আর স্যানিটাইজারের ব্যবসাটা শুরুর দিকে করেছে তারা কিন্তু লাখ খানেক টাকা নিয়ে সরে যাচ্ছে; তাদের লাভ হচ্ছে ঠিকই। এভাবে দ্বিতীয় বা তৃতীয় বা চতুর্থ কিংবা পঞ্চাশজন মাস্ক আর স্যানিটাইজার বিক্রেতার লাভ হচ্ছে ধরে নিলাম। কিন্তু যে বা যারা প্রথম থেকে দশের মধ্যে ছিল; তারাই কিন্তু লাখ টাকা কামিয়েছে এবং যত প্রতিযোগিতা বাড়ছে তত কমছে লাভের পরিমাণ এবং যারা প্রথম পঞ্চাশজন ব্যবসায়ীর পরে মাস্ক আর স্যানিটাইজার বিক্রি করা শুরু করেছে তারা লাভ করছে কতটা? লাখ টাকা তো দূরের কথা কয়েক হাজারটাকা লাভের জন্য তারা ১২-১৫ ঘণ্টা কাজ করছে।

এখন আমি যদি আপনাদের পাঁচটা সেক্টরের নাম বলি, যেগুলোতে ব্যবসা করতে পারলে আপনি সেই প্রথম দশজন ব্যক্তির মধ্যে একজন হতে পারবেন; যারা কিনা লক্ষ টাকা আয় করবে ভবিষ্যতে এই সেক্টরগুলোতে ব্যবসা করে! আপনি ব্যবসা করতে প্রস্তুত?

আপনি প্রত্যেকবার কোনো না কোনো ব্যবসা শুরু করতে চান, কিন্তু সেই ব্যবসায় পা রাখতে না রাখতেই পঞ্চাশজনের থেকে অনেক দূরে চলে যান। আর যতক্ষণে ব্যবসার খাতায় নাম লেখাচ্ছেন ততক্ষণে লাভের অংক কমে লাখ থেকে হাজারে চলে আসে।

কিন্তু এই পাঁচটা সেক্টর নিয়ে যদি আপনি আজকে থেকেই ব্যবসা শুরু করেন, তাহলে কিন্তু সবসময়য়েই প্রথম কয়েকজনের মধ্যে থাকতে পারবেন। আর প্রতিযোগীতাও কম থাকবে। এই পাঁচটা সেক্টর হচ্ছে,
(১) আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স
(২) রিয়েল এস্টেট বিজনেস
(৩) সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং অ্যাজেন্সি
(৪) অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট
(৫) হোমবেইজ সার্ভিসেস

এই পাঁচটা নিয়ে আজকে থেকেই ভাবা শুরু করুন। এই পাঁচটা নিয়ে আজকে থেকেই কিছু করার প্রথম ধাপটা শুরু করুন। না জানলে ক্লাস করুন, শিখুন, কিভাবে কি করতে হয়; সেটার রিসোর্স সংগ্রহ করুন। আমার নিজেরও তিনটি অ্যাজেন্সির কাজ চলছে আন্ডারগ্রাউন্ডে। খুব শীঘ্রই সেগুলো লঞ্চ হবে বেশ কিছু ক্লায়েন্ট নিয়ে।

আপনি তৈরি তো আপনার পণ্য বা সেবা নিয়ে?

3 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *